Search
Friday 19 January 2018
  • :
  • :

আগামী নির্বাচনে সিলেটের ১৯ আসনে বিএনপি-জোট প্রার্থীরা

আগামী নির্বাচনে সিলেটের ১৯ আসনে বিএনপি-জোট প্রার্থীরা
Spread the love

বিশেষ প্রতিনিধি :: দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতা থেকে দূরে থাকা দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার লক্ষ্যে ঘর গোছাচ্ছে। ইতিমধ্যে দলের হাইকমান্ড সারাদেশের ন্যায় সিলেট বিভাগে ৪ জেলার মোট ১৯ টি সংসদীয় আসনেরই প্রার্থীদের সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করে ফেলেছে বলে দলটির নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছে।

 

সিলেট-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম খন্দকার আব্দুল মালিকের ছেলে এবং বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির এখন একাই এ আসন থেকে নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন। বাবা খন্দকার মালিকের জনপ্রিয়তা আর নিজের ক্লিন ইমেজের কারণে আব্দুল মুক্তাদির ইতিমধ্যে নিজের অবস্থান বেশ শক্তিশালী করে নিয়েছেন। জানা গেছে খালেদা জিয়ার গ্রিন সিগন্যাল নিয়ে তিনি নির্বাচনের ব্যাপারে প্রস্তুতিও নিচ্ছেন। নিয়মিত চষে বেড়াচ্ছেন সংসদীয় এলাকা। আর নিজের ক্লীন ইমেজের কারনে দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ ভোটারদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন তিনি। ইতিমধ্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমান্ড সিলেট বিভাগের ৪ জেলার ১৯ টি আসনের একটি খসড়া প্রার্থী তালিকা প্রস্তুত করেছে। সেই তালিকাতেও রয়েছে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের নাম। এদিকে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের শ্বশুড়বাড়ি সিলেটে হওয়ায় আত্মীয়তার বন্ধনের কারণে ভোটের রাজনিতিতে আওয়ামীলীগের চেয়ে বিএনপির অনেক এগিয়ে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

 

সিলেট-২ (বিশ্বনাথ,বালাগন্জ,ওসমানী নগর): খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদির লুনা ও খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব মুহাম্মদ মুনতাসির অালী। সিলেট-৩ (দক্ষিণ সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ): সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল কাইয়ুম চৌধুরী, খেলাফত মজলিস নেতা মাওলানা দিলোওয়ার হোসাইন। এদের মধ্যে শেষ পর্যন্ত দলের মনোনয়ন শফি চৌধুরী পেতে পারেন। সিলেট-৪ (কোম্পানীগঞ্জ-গোয়াইনঘাট-জৈন্তাপুর):বিএনপি‘র কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য দিলদার হোসেন সেলিম। সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ): জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ ফরিদ চৌধুরী, খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীর ভাই, জেলা বিএনপির নেতা ও কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশিক চৌধুরী ও কানাইঘাট উপজেলা বিএনপির সভাপতি মামুনুর রশিদ মামুন চান দলের টিকেট। দু’জনেই কেন্দ্রের ‘গুডলিস্টে’ আছেন। সিলেট-৬ (বিয়ানীবাজার-গোলাপগঞ্জ): সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীম। সুনামগঞ্জ-১ (ধর্মপাশা-জামালগঞ্জ-তাহিরপুর): সাবেক সংসদ সদস্য নজির হোসেন। সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা): বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও জেলা বিএনপির সাবেক আহবায়ক নাছির উদ্দিন চৌধুরী।

সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ): সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সহ- সভাপতি কর্ণেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারন সম্পাদক কয়ছর এম অাহমদ, খেলাফত মজলিস নেতা হাফিজ মাওলানা এনামুল হাসান, সাবেক সংসদ সদস্য জমিয়ত নেতা এডভোকেট মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী, জমিয়ত নেতা মাওলানা ইমরান অাহমদ।সুনামগঞ্জ-৪ (সুনামগঞ্জ সদর-বিশম্ভরপুর): চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ফজলুল হক আছপিয়া।সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার): কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী মিজান, খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মদ শফিক উদ্দিন অাহমদ।হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল): সাবেক এমপি জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি শেখ সুজাত মিয়া।হবিগঞ্জ-২ (আজমিরীগঞ্জ-বানিয়াচং): কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হাসান জীবন।হবিগঞ্জ-৩ (সদর-লাখাই): জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মেয়র জিকে গৌছ।হবিগঞ্জ-৪ (চুনারুঘাট-মাধবপুর): খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আব্দুল কাদের, জেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মোহম্মদ ফয়সল, সংরক্ষিত নারী আসনে সাবেক এমপি শাম্মি আক্তার শিফা। মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা-জুড়ী): বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক সংসদ সদস্য এবাদুর রহমান চৌধুরী ও সাবেক সংসদ সদস্য নওয়াব আলী আব্বাস। মৌলভীবাজার-২ (কুলাউড়া-কমলগঞ্জ): মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি, সাবেক সংসদ সদস্য এম এম শাহীন, জামায়াতের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান।মৌলভীবাজার-৩ (সদর-রাজনগর): সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের পুত্র ও জেলা বিএনপির সভাপতি, সাবেক সংসদ সদস্য নাসের রহমান, খেরাফত মজলিস নেতা মাওলানা অাহমদ বিলাল। মৌলভীবাজার-৪ (শ্রীমঙ্গল): বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী ( হাজী মুজিব)।

 

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট বিভাগের ১৯টি আসনে বিএনপি ও জোট প্রার্থীদের সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি হয়ে জোটের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দের কাছে জমা হয়েছে এবং অাসন বন্টন নিয়েও চলছে জোট নেতৃবৃন্দের মধ্যে মনোমালিন্য। জোটের কেন্দ্রীয় এক নেতা দৈনিক সিলেটের পত্রিকা কে জানান, সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি হলে বিএনপি জোট নির্বাচনে অংশ নিবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে নিজ নিজ দলের প্রার্থীদের তালিকা তৈরি হয়েছে কিন্তু নির্বাচনে জোটের শীর্ষ নেতৃবৃন্দরা অালোচনার মাধ্যমে শেষ পর্যন্ত দেশ ও জাতীর সার্থে জোটের পক্ষ থেকে প্রতিটি অাসনে একক প্রার্থী দেওয়া হবে।

 

বিশেষ সুত্রে যানা যায়, সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে জোট প্রার্থীদের সংক্ষিপ্ত তালিকা বেগম জিয়া ও জোটের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দের কাছে জমা হয়েছে।

Share this...
Share on FacebookPrint this pageShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn



Skip to toolbar