সিলেট সদর আসনে খালেদা অথবা ইনামকে চায় তৃণমূল

সিলেট সদর আসনে খালেদা অথবা ইনামকে চায় তৃণমূল
Spread the love

এশিয়ানপোস্ট ডেস্ক  :

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট সদর আসনে দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও জোবায়েদা রহমানের প্রার্থী হওয়ার গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মীরাও তাদেরকে এই আসনে চাচ্ছেন। গতকাল সিলেটের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

তারা মনে করেন, সদর আসনটি গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় দলের প্রধান এ আসন থেকে নির্বাচন করে বিজয়ী হলে বিএনপি আগামীতে ক্ষমতায় আসবে। এ প্রত্যাশা তাদের। এর বাইরেও রয়েছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চেীধুরী ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার আবদুল মোক্তাদির।
এদিকে জাতীয় নির্বাচনে সিলেট সদর-১ আসনটিতে বলা হয়ে থাকে যে দলের প্রার্থী জয়ী হয়, সেই দলটি সরকার গঠন করে থাকে।

এ ক্ষেত্রে এই আসনে ভালো প্রার্থী কিংবা শক্তিশালী প্রার্থীর কোনো সমস্যা নেই বিএনপিতে। তবে সমস্যা হচ্ছে কোন সেই শক্তিশালী প্রার্থী যাকে বাছাই করবেন খালেদা জিয়া! সিলেট সদরের এ আসনটিতে সৎ ও যোগ্য প্রার্থী রয়েছে একাধিক। তাদের নিয়ে ভাবনায়ও আছেন খালেদা জিয়া। তবে এই আসনে সিলেট বিএনপির অনেকেই চায় খালেদা জিয়া নিজেই নির্বাচন করুক। আবার কেউ কেউ প্রত্যাশা করেন তার ছেলে তারেক রহমানের সহধর্মিনী ডা. জোবায়েদা রহমান নির্বাচনে আসুক। আবার অনেকে মনে করেন, সিলেট সদর আসন থেকে দলের ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহম্মেদ চৌধুরী মনোনয় পেতে পারেন।

এ বিষয়ে সিলেট মহানগর কমিটির সহ-সভাপতি ড. নাজমুল ইসলাম বলেন, সিলেট-১ আসন মানুষ শক্তিশালী প্রার্থী চায়। এই আসনে জিয়া পরিবারের কেউ আসলে সবাই সাদরে গ্রহণ করবে বলে মনে করেন তিনি। এর বাইরে তার ভাষ্য, ইনাম আহমেদ চৌধুর যোগ্য প্রার্থী।

তিনি আরো বলেন, এই আসনের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে আমার দেখতে পাই, অতীতে সিলেট সদর থেকে হুমায়ুন রশীদ চেীধুরী ও সাইফুর রহমানের মতো যোগ্য ব্যক্তিরা নির্বাচিত হয়েছেন। সে হিসেবে ইনাম আহমেদের বিকল্প কোনো প্রার্থী আছে বলে আমরা মনে করি না। তবে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরী মনে করেন, খালেদা জিয়া অথবা জোবাইদা রহমান প্রার্থী হলে উত্তম হয়।

তিনি বলেন, সিলেটের এই আসনটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমার মনে হয় এখান থেকে আমাদের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া অথবা জোবায়েদা রহমান নির্বাচন করলে ভালো। তবে দল চাইলে আমি সদর আসনে নির্বাচন করব এবং আসনটিতে জয় লাভ করার চেষ্টা করব।

সিলেটের শাহজালাল ও শাহ্পরানের এই আসনটি নিয়ে বিএনপির চিন্তা ভাবনা কী জানতে চাইলে স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমরা যে নির্বাচনে যাবো সেখানে আগে দেখতে হবে দেশের কী পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। কারণ আমরা বলেছি জাতীয় নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। একই সঙ্গে সেই নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে মোতায়ন করতে হবে। এ সব দাবি পূরণ হলেই আমরা নির্বাচনে যাব। সেই পরিবেশ পরিস্থিতিতে কখন কোথায় কাকে মনোনয় দেব তখনই সিদ্ধান্ত হতে পারে।

তিনি বলেন, এই পথে আরো অনেক নেতার উত্থান-পতন হতে পারে। সেটা দেখে আমরা মনোনয়ন ঠিক করব। এখনই আমি বিএনপির ১ নম্বর স্থায়ী কমিটির সদস্য হয়ে মনোনয়নের বিষয়ে কিছুই বলতে পারব না।

মনোনয়নের বিষয়ে দলের আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহাবুবুর রহামন বলেন, এখনো নির্বাচন অনেক সময় বাকি। যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়, তাহলে অবশ্যই এই আসনটি আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্ব পাবে। সেই ক্ষেত্রে ইনাম আহমেদ চৌধুরী অত্যন্ত যোগ্য ব্যক্তি। যিনি মাঠে থেকে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি আরো বলেন, মনোনয়নের বিষয়ে আরো পরে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। কারণ এই নির্বাচন দেয়ার আগে আমাদের অনেক দাবি আছে। সেই দাবিগুলো পূরণ হলেই আমার নির্বাচনে যাব। অন্যদিকে ইনাম আহমেদ চেীধুরীর পাশাপাশি পিছিয়ে নেই খন্দকার আবদুল মোক্তাদির। এদিকে মোক্তাদির পক্ষেও স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা তার মনোনয়ন প্রত্যাশা করে যাচ্ছেন। মানবকণ্ঠ

Share this...
Share on FacebookPrint this pageShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn



Skip to toolbar